এক গুচ্ছ কবিতা (অরুণাভ চট্টোপাধ্যায়)

বৃষ্টিযাপন

#

আরও যত স্বপ্ন ক্রিস্টাল হয়ে ঝরে যাবে শরতের ভোরে
ততই মৃত্যু চেতনায় বুঁদ হবে কার্তিকের ধান।
তার থেকে বরং এসো এক পশলা জলকাব্য লিখি
যেখানে দুঃখী ক্লাউনেরাও নকল মানুষের অভিনয় পারে না।

এসো, প্রেমের পাণ্ডুলিপিতে এঁকে চলি স্বপ্নের সাম্পান
জেগে ওঠার পর খুঁজে পাই নিজস্ব অবিচুয়ারি
চায়ের ধোঁয়ায় ভেসে যাক ইচ্ছের রোশনাই
তোমার আমার না বলা ‘বেনিআসহকলা’ ।

এসো, স্নিগ্ধ বটফলের মতো কালভার্ট জুড়ে স্বপ্ন সাজাই, এখানে
বছর ঘুরে ক্লোরোফিল মুখে হাল্কা হয়ে আসা চুমুর একাকীত্ব।

এসো,
পিপাসার সব রঙ আজ নীল নিয়নে মিশে যাক।

#

আমরা যখন অজ্ঞাতবাসের বিকেলে ভাত বিলিয়ে দেই
উত্তরের বারান্দা থেকে বিশ্বাস – অবিশ্বাসের স্কাইলাইনে,
দ্বিধার মাস্তুলে সম্পর্কের কঙ্কাল কুকুরের ছদ্মবেশে আসে।

 

ঠিক মতো এখানে আর বর্ষামঙ্গল লেখা হয় না

কান্ট্রি সাইডে খুঁজতে যেতে হয় নবান্নের ঘ্রাণ
নির্লিপ্ততায় চলে ঘাসফড়িং এর দিন যাপন।

 

এখানে শুধু অদৃশ্য মায়াজালে পরকীয়া রাত
স্মৃতিসত্ত্বায় ঘাসের আঁচড়ে ফেলে আসা শৈশব সুখ
ক্ষণিকের চোখ ভেজানো প্রশ্নের সিরিজ…

 

ওগো কথামালা – মাঝরাতে তুমি ঘুম হয়ে যাও।

#

মাঝ বিকেলের বোবা তৃষ্ণায় লুকিয়ে থাকে
মৃত শহর, পাতাহীন গাছ আর নোনা বালিয়াড়ির দুঃস্বপ্ন।
অব্যর্থ নিশানায় প্রাণ সংশয়ের হিসাবনিকাশ
স্বপ্ন উড়ানে একরাশ অভিমান নিয়ে চলে যায় আরব্যরজনীর ভোর।

ঠিক যেমন আশ্বিনের হঠাৎ বৃষ্টিতে রাতের গভীরতা মাপে
এ ফর অ্যাপল্‌ … বি ফর বল… এল ফর লাইম কর্ডিয়াল।
অতএব, অসঙ্গত পদক্ষেপে এখন পরম হওয়া যাক
আলস্যে আদুরে শরীর বুকপকেটের চোরা পৃথিবী খুঁজছে অবিরাম।

ফিতের বাঁধনে এখনও তোমার আমার অনিয়ন্ত্রিত ঘুম।

#

অপেক্ষার টার্মিনাস লেখে সবুজ মোজার মর্নিংওয়াক

ফাঁকা হাভানার বাক্সে গুমরে ওঠা দীর্ঘশ্বাস

আশ্বিনের কাশে বৃষ্টির শেষ চাইম যেন তোমার পালকের রথ…

 

অতঃপর

পাখিদের ঘরে ফেরা তারাদের নিজস্ব হোমকামিং

আর প্রেম অপ্রেম মিলেমিশে বুড়িগঙ্গায় জলযাপন।

Facebook Comments
শেয়ার

One Reply to “এক গুচ্ছ কবিতা (অরুণাভ চট্টোপাধ্যায়)”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *